post
এনআরবি সাফল্য

দুবাইতে সফল প্রবাসী মোজাম্মেল হক

কুমিল্লা চান্দিনার মহিচাইল ইউনিয়নের হারলদা গ্রামের হাজী মোহাম্মদ ফজলুর রহমানের ছেলে মোঃ মোজাম্মেল হক। প্রায় ১০ বছর সৌদি আরবে ব্যবসা করে সফলতা অর্জনের পর,২০২১ সালে আমিরাতে শুরু করেন নতুন ব্যবসা। দুবাইতে তিনি একে একে তৈরি করেন "ইয়ামিন টেকনিক্যাল সার্ভিস এলএলসি ও এমডি নাহিদ মোবাইল ফোন এন্ড ইলেকট্রনিক্সসহ চারটি প্রতিষ্ঠান। কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেন প্রায় একশো বাংলাদেশীর। মোজাম্মেল হকের প্রতিষ্ঠান "ইয়ামিন টেকনিক্যাল সার্ভিস" থেকে সকল প্রকার মেনটেনেন্স এর কাজ করা হয়। এছাড়াও "এমএস ট্রাভেল এন্ড টুরিজম" থেকে সব ধরনের টিকেটিং, দুবাইয়ের এমপ্লয়মেন্ট ভিসা, পার্টনার ভিসা, মাল্টিপল ভিসা ও ওমরা ভিসাসহ সকল ধরনের ভিসা প্রসেসিং করা হয়। চান্দিনা প্রবাসী কল্যাণ সংগঠন সংযুক্ত আরব আমিরাতের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন মোজাম্মেল। পাশাপাশি আরও বেশ কয়েকটি সামাজিক সংগঠনের সাথেও দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে আসছেন, সফল এই রেমিটেন্স যোদ্ধা।

post
এনআরবি সাফল্য

মালয়েশিয়ায় ‘সেকেন্ড হোম’ ৩৬০৪ বাংলাদেশির

মালয়েশিয়ায় দ্বিতীয় নিবাস গড়ার 'মালয়েশিয়া মাই সেকেন্ড হোম' কর্মসূচিতে অংশগ্রহণকারীদের তালিকায় চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশিরা। এখন পর্যন্ত তিন হাজার ৬০৪ জন বাংলাদেশি মালয়েশিয়ায় 'সেকেন্ড হোম' গড়েছেন। ২৯ মার্চ মালয়েশিয়ার পর্যটন, শিল্প ও সংস্কৃতি মন্ত্রী টিয়ং কিং সিং এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, দেশটিতে গত ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত ৫৬ হাজার ৬৬ জন সক্রিয় 'সেকেন্ড হোম' পাস হোল্ডার রয়েছেন—যার মধ্যে পার্টিসিপেন্ট পাস হোল্ডার ২৭ হাজার ৭৫৯ জন এবং নির্ভরশীল ২৮ হাজার ৩০৭ জন।তালিকায় ২৪ হাজার ৭৬৫ জন পাসধারী নিয়ে শীর্ষে রয়েছে চীন। এরপরে যথাক্রমে দক্ষিণ কোরিয়ার চার হাজার ৯৪০ জন, জাপানের চার হাজার ৭৩৩ জন, বাংলাদেশের তিন হাজার ৬০৪ জন, যুক্তরাজ্যের দুই হাজার ২৩৪ জন, তাইওয়ানের এক হাজার ৬১১ জন, যুক্তরাষ্ট্রের এক হাজার ৩৪০ জন রয়েছে। এ ছাড়া, সিঙ্গাপুরের রয়েছেন এক হাজার ২৮২ জন, ভারতের এক হাজার ২২৩ জন এবং অস্ট্রেলিয়ার এক হাজার ৬৯ জন। মালয়েশিয়া 'মাই সেকেন্ড হোম' প্রোগ্রামে ২০১৮ সালে পাঁচ হাজার ৬১০টি এবং ২০১৯ সালে তিন হাজার ৯২৯টি আবেদন অনুমোদন দেয়। প্রোগ্রামটি ২০২০ সালের আগস্টে সাময়িক বন্ধ ছিল। এরপর ২০২১ সালের অক্টোবর থেকে প্রায় এক হাজার ৪৬৮টি আবেদন অনুমোদন দেওয়া হয়েছিল। 'সেকেন্ড হোম' কর্মসূচিতে আরও বেশি বিদেশি আবেদনকারীদের আকৃষ্ট করতে শর্ত সহজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির সরকার। গত ১৪ মার্চ দেশটির উপ-প্রধানমন্ত্রী দাতুক সেরি ডা. আহমদ জাহিদ হামিদি এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানান। তবে শর্ত সংশোধনের ক্ষেত্রে জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রাখা হবে বলেও জানান তিনি। যেসব শর্ত সংশোধন করা হবে তার মধ্যে রয়েছে, আবেদনকারীদের আবশ্যক ফিক্সড ডিপোজিটের পরিমাণ সিলভার, গোল্ড ও প্লাটিনাম এই তিনটি স্তরে পরিবর্তিত হবে। আবেদন প্রক্রিয়া সহজ করার জন্য অভিবাসন বিভাগের সঙ্গেও কাজ করবে সংশ্লিষ্ট বিভাগ। সব ফরম পূরণ করার পর নিরাপত্তা অনুসারে আবেদনকারী যোগ্য কি না, তা তিন কার্যদিবসের মধ্যেই যাচাই করা হবে। সংশোধিত শর্ত অনুযায়ী, আবেদনকারীরা ১০ বছরের আগে তাদের সম্পত্তি পুনরায় বিক্রি করতে পারবেন না এবং তাদের ভিসা প্রতি পাঁচ বছর পর পর নবায়ন করতে হবে। দেশটির সরকার আবেদনকারীদেরকে সন্তানের জন্য পছন্দের স্কুল বেছে নেওয়ার সুবিধা দেবে। এ ছাড়া, যারা ফরেস্ট সিটির জন্য আবেদন করছেন, তাদের ক্ষেত্রেও একই নিয়মে শর্ত সহজ করা হবে। গত ১২ মার্চ দেশটির পর্যটন, শিল্প ও সংস্কৃতি মন্ত্রী দাতুক সেরি টিয়ং কিং সিং সংসদে বলেছেন, 'আরও বিদেশি নাগরিক মাই সেকেন্ড হোম প্রোগ্রামে যোগ দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে, কারণ সরকার কিছু শর্ত শিথিল করার দিকে নজর দিয়েছে।' 'সেকেন্ড হোম' ক্যাটাগরির নানা আলোচনা ও সমালোচনার পর ২০২২ সালের অক্টোবরে মালয়েশিয়া সরকার নতুন করে পিভিআইপি নামে প্রিমিয়াম ভিসা চালু করেছে—যেটি প্রায় সেকেন্ড হোম ক্যাটাগরির। পিভিআইপি প্রোগ্রামে আবেদন করেছেন মোট ৪৭ জন বিদেশি ধনী বিনিয়োগকারী, যাদের মধ্যে একজন বাংলাদেশি।

post
এনআরবি সাফল্য

কানাডার প্রাদেশিক আইনসভায় বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন

মহান স্বাধীনতা দিবসের প্রতি সম্মান রেখে প্রতিবছরের মতো এ বছরও কানাডার প্রাদেশিক আইনসভা (কুইন্স পার্কে) বাংলাদেশ সেন্টার অ্যান্ড কমিউনিটি সার্ভিসেস এর উদ্যোগে বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করা হয়েছে। পতাকা উত্তোলনের বিশেষ এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, প্রাদেশিক আইনসভা সংসদের স্পিকার টেড আর্নট, এনডিপি পার্টির এমপিপি ডলি বেগম, বিসিসিএস'র সভাপতি সেবু চৌধুরী, কনজারভেটিভ পার্টির এমপিপি লোগান কানাপাথি, লিবারেল পার্টির এমপিপি মেরী মার্গারেট, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ম্যাক আজাদসহ বাংলাদেশ কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। এ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন নতুন প্রজন্মের রুবিনা ফারিন।সর্বস্তরের নারী পুরুষদের পদচারণায় মুখরিত ছিল পুরো কুইন্স পার্ক। পতাকা উত্তোলনের সময় জাতীয় সংগীতে সবাই আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। প্রবাসী বাঙালিদের এই আয়োজনকে স্বাগত জানিয়েছেন বিদেশিরাও। অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বিশ্বের দরবারে আমাদের লাল-সবুজের পতাকা আমাদের বাংলাদেশি জাতীয়তাকে ধারণ করে। যাদের রক্তের বিনিময়ে আমরা এই লাল সবুজের পতাকা পেয়েছি তাদের প্রতি আমাদের গভীর শ্রদ্ধা। আয়োজকরা জানান, আমাদের মহান স্বাধীনতার ইতিহাস ও সংস্কৃতির বলয়কে নতুন প্রজন্মের মাঝে ছড়িয়ে দিতেই আমাদের এই আয়োজন।

post
এনআরবি সাফল্য

মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে প্রজেক্ট বানিয়ে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত দুই মার্কিন কিশোরীর স্বর্ণপদক জয়

অর্চিতা শ্বেতার জন্ম সিঙ্গাপুরে। রিফাইয়া ফয়সালের যুক্তরাষ্ট্রে। জন্ম দুই দেশে হলেও দুজনের মধ্যে একটা মিল আছে। তা হলো, তাদের মা-বাবা বাংলাদেশি। বর্তমানে তারা যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানা অঙ্গরাজ্যের কারমেল হাইস্কুলের নবম গ্রেডের শিক্ষার্থী। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণসহ বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে প্রকল্প (প্রজেক্ট) বানিয়ে সম্প্রতি অর্চিতা ও রিফাইয়া স্বর্ণপদক জয় করেছে। ‘দ্য ফরগটেন জেনোসাইড, ফ্রিডম বারিড আন্ডার ব্লাড: দ্য বাংলাদেশ লিবারেশন ওয়ার’ শিরোনামের এ প্রকল্পে ভাস্কর্যের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণসহ মুক্তিযুদ্ধের নানা দিক উপস্থাপন করে অর্চিতা ও রিফাইয়া। প্রতিযোগিতার আয়োজক ছিল ইন্ডিয়ানা হিস্ট্রিক্যাল সোসাইটি। অর্চিতার বাবা চন্দ্রনাথ গণমাধ্যমকে বলেন, আঞ্চলিক প্রতিযোগিতায় স্বর্ণপদক পেয়েছে তাঁর মেয়ে এবং রিফাইয়া। এরপর অঙ্গরাজ্যসহ বিভিন্ন ধাপে স্বর্ণপদক পেলে তারা জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারবে। অর্চিতা ও রিফাইয়া জানায়, ওয়ার্ল্ড হিস্ট্রি প্রজেক্ট হিসেবে দলীয়ভাবে ‘টার্নিং পয়েন্ট ইন হিস্ট্রি’, অর্থাৎ বিশেষ কারণে এক ব্যক্তির নেতৃত্বে বিশ্বের ইতিহাস নতুন মোড় নিয়েছে—এমন কিছু পরিকল্পনা করতে বলেছিলেন তাদের শ্রেণিশিক্ষক (২০২৩-২৪ স্কুল ইয়ার)। পরে প্রকল্পটি যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল হিস্ট্রি ডের প্রতিযোগিতায় উপস্থাপন করে তারা। বিচারকদের ৮টি ভিন্ন প্রশ্নের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে ‘উদাহরণযোগ্য’ প্রকল্প হিসেবে স্বীকৃতি পায় এটি। প্রতিযোগিতায় অন্তত ৩০০টি প্রকল্প উপস্থাপিত হয়। পরিবারের সদস্যদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০১১ সালে অর্চিতার বয়স যখন দেড় বছর, তখন সিঙ্গাপুর থেকে যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে থিতু হন চন্দ্রনাথ। আর রিফাইয়ার বাবা আবু নাসের ফয়সাল যুক্তরাষ্ট্রে যান গত শতকের নব্বইয়ের দশকের শুরুতে। বাংলাদেশে জন্ম না নিলেও মা–বাবার সূত্রে এই দুই কিশোরীর শিকড় বাংলাদেশে। ঘরে তারা বাংলায় কথা বলে। মা-বাবার কাছে মুক্তিযুদ্ধের গল্প শুনে তারা বড় হয়েছে।এই দুই কিশোরী জানিয়েছে, তারা এ কাজ করতে গিয়ে প্রকল্প উপস্থাপনের পর বিচারকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিয়েছে। তারা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বিস্তারিত জানার সুযোগ পায় এই কাজ করতে গিয়ে, যা তাদের মনের মধ্যে গেঁথে গেছে। জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় যাওয়ার ব্যাপারে তারা আশাবাদী। মেয়ের সাফল্যে বাবার অনুভূতি জানতে চাইলে চন্দ্রনাথ প্রথম আলোকে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নবপ্রজন্ম হিসেবে মেয়ের জন্য এটি অনেক বড় অর্জন। বিশেষ করে যে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছিল, তাদের ভূমিতে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস উপস্থাপন করে স্বর্ণপদক পাওয়া অনেক বড় একটা স্বীকৃতি।

post
এনআরবি সাফল্য

যুক্তরাষ্ট্রের এডুকেশন বোর্ডে বাংলাদেশি

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল সিকিউরিটি এডুকেশন বোর্ডের সদস্য হলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত সাবেক কূটনীতিক ও শিক্ষাবিদ ড.ওসমান সিদ্দিকী। শুক্রবার হোয়াইট হাউজ থেকে এ ঘোষণা দেয়া হয়। বোর্ডটির অন্য সদস্যরা হলেন, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রী, হোমল্যান্ড সিকিউরিটি মন্ত্রী, জ্বালানিমন্ত্রী, বাণিজ্যমন্ত্রী, জাতীয় গোয়েন্দা পরিচালক এবং মানবতা বিষয়ক জাতীয় কমিটির প্রধান। এছাড়াও এই বোর্ডের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে রয়েছেন মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী। ড. এম ওসমান সিদ্দিকী বর্তমানে দেশটির রাজনীতির সাথে যুক্ত রয়েছেন। ১৯৯৯ সালে প্রেসিডেন্ট ক্লিনটন তাকে ফিজি, টোঙ্গা, টুবালু এবং নাউরু নামক দ্বীপ রাষ্ট্রসমূহের রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগ দেন। ২০০০ সালে ফিজির অভ্যুত্থানের সময় গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া রক্ষা ও দেশটির পুনর্বাসনে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন ড. ওসমান। তিনি বাংলাদেশের সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ড. ওসমান ফারুকের ছোট ভাই।

post
এনআরবি সাফল্য

কাতারের বাংলাদেশী প্রতিষ্ঠান ভৈরব রেস্টুরেন্টের যাত্রা শুরু

কাতারের গারাফা পুরাতন পাসপোর্ট অফিস সংলগ্ন এলাকায় বাংলাদেশী প্রতিষ্ঠান ভৈরব রেস্টুরেন্টের যাত্রা শুরু হয়েছে। প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী শফিকুল ইসলাম, ওমর ফারুক, আব্দুল্লাহ আবু বক্করকে সাথে নিয়ে ফিতা কেটে প্রতিষ্ঠানটির উদ্বোধন করেন কাতারে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ বিমানের কান্ট্রি ম্যানেজার মোঃ কামাল উদ্দিন, বাংলাদেশ কমিউনিটির ফাউন্ডার প্রেসিডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার আনোয়ার হোসেন আকন, বিসিকিউর সিনিয়র প্রেসিডিয়াম সদস্য শফিকুল ইসলাম তালুকদার বাবু, কমিউনিটি নেতা ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার আবু রায়হান ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলমগীর হোসেন আলী।

post
এনআরবি সাফল্য

বাইডেন প্রশাসনের মর্যাদাসম্পন্ন পর্ষদের সদস্য হলেন ড. ওসমান সিদ্দিকী

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশিদের গর্ব করে বলার মতো আরও একটি অর্জনের খবর এলো শুক্রবার, ২২ মার্চ। এই দিন হোয়াইট হাউজ ঘোষণা করলো, বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত সাবেক কূটনীতিক ও শিক্ষাবিদ ড. এম. ওসমান সিদ্দিকী ন্যাশনাল সিকিউরিটি এডুকেশন বোর্ডের সদস্য হিসেবে নিযুক্ত হয়েছেন।চেয়ারম্যান হিসাবে এই বোর্ডের নেতৃত্বে রয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী। আর এর স্থায়ী সদস্যরা হলেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রী, হোমল্যান্ড সিকিউরিটি মন্ত্রী, জ্বালানিমন্ত্রী, বাণিজ্যমন্ত্রী, জাতীয় গোয়েন্দা পরিচালক, এবং মানবতা বিষয়ক জাতীয় কমিটির প্রধান। প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এই নিয়োগ দেন। ড. ওসমান সিদ্দিকী ছাড়া আরও ছয় জন এই মর্যাদাসম্পন্ন হাই প্রোফাইল বোর্ডটির সদস্য নিযুক্ত হলেন। তবে তাদের এই নিয়োগ কোনো সরকারি চাকরি নয়। এটি উচ্চ ক্ষমতার পরামর্শকের দায়িত্ব।নিয়োগ পাওয়ার পর এনআরবিসি টিভিকে পাঠানো এক প্রতিক্রিয়ায় ড. ওসমান সিদ্দিকী বলেন, “আমি খুবই সম্মানিত বোধ করছি যে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আামাকে এমন মর্যাদাসম্পন্ন একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠানের সর্বোচ্চ পর্ষদের সদস্য করেছেন।” ড. এম ওসমান সিদ্দিকী একজন সাবেক কূটনীতিক এবং বর্তমানে মার্কিন রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। ১৯৯৯ সালে প্রেসিডেন্ট ক্লিনটন তাকে ফিজি, টোঙ্গা, টুবালু এবং নাউরু নামক দ্বীপ রাষ্ট্রসমূহের রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগ দেন। ২০০০ সালে ফিজির অভ্যুত্থানের সময় গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া রক্ষা ও দেশটির পুনর্বাসনে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন ড. ওসমান। তিনি হচ্ছেন প্রথম আমেরিকান মুসলিম কূটনৈতিক যিনি অন্য দেশে কোনো মার্কিন মিশন প্রধানের ভূমিকা পালন করেন। ওসমান সিদ্দিকী উচ্চ শিক্ষার জন্যে যুক্তরাষ্ট্রে আসেন সত্তর সালের আগে। ইন্ডিয়ানা ইউনিভার্সিটির কেলি স্কুল অফ বিজনেস থেকে এমবিএ ডিগ্রি অর্জনের পর, যোগ দেন একটি ফরচুন ফাইভ হান্ড্রেড কোম্পানিতে। অল্প সময়ের মধ্যে তিনি একজন সফল উদ্যোক্তায় পরিণত হন এবং আবির্ভূত হন একজন সফল ব্যবসায়ী হিসেবে। এরপর তিনি সিনেটর টেড কেনেডির অধীনে ডেমোক্রেটিক পার্টি এবং জাতীয় রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে উঠেন। ২০১১ সালে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা তাকে ট্রাস্টি হিসেবে নিয়োগ দেন হাওয়াইর হনলুলুতে ইস্ট ওয়েস্ট সেন্টারের বোর্ড অব গভনর্রসে। বর্তমানে ড. সিদ্দিকী বেশ কয়েকটি বহুজাতিক সংস্থার কৌশলগত উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করছেন। পাশাপাশি কাজ করছেন আটলান্টিক কাউন্সিলসহ একাধিক বোর্ডে অনাবাসী সিনিয়র ফেলো হিসাবে। বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জে জন্মগ্রহনকারী ড. এম. ওসমান সিদ্দিকী বর্তমানে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া অঙ্গরাজ্যের ম্যাকলিন এলাকায় বসবাস করছেন। বাংলাদেশের সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ড. ওসমান ফারুকের ছোট ভাই ড. এম ওসমান সিদ্দিক। আর তার বাবা ড. ওসমান গণি ছিলেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত বিজ্ঞানি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর ও ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাকালীন ভিসি।

post
এনআরবি সাফল্য

ডক্টরেট উপাধি পেলেন বেলাল

বাংলাদেশি কমিউনিটির পরিচিত মুখ ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বেলায়েত হোসেন বেলাল ক্যালিফোর্নিয়ার লস অ্যাঞ্জেলেসের ‘ওভাল বাইবেল কলেজ’ থেকে অনারারি ডক্টরেট ডিগ্রি লাভ করেছেন। সার্টিফিকেট গ্রহন করেন। গত ১৫ মার্চ শুক্রবার নিউইয়র্কের উডসাইডে গুলশান টেরেসে বণার্ঢ্য এক অনুষ্ঠানে বেলায়েত হোসেন বেলালের হাতে ডক্টরেট ডিগ্রির সার্টিফিকেট তুলে দেওয়া হয়। এসময় উপস্থিত সবাই করতালি দিয়ে বেলায়েত হোসেন বেলালকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান। এছাড়াও বিশিষ্ট ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বেলায়েত হোসেন বেলাল নিউইয়র্কে স্বনামধন্য ট্রাভেল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বাংলা ট্রাভেল ও ডিজিটাল ওয়ান ট্রাভেলের কর্ণধার। সম্প্রতি ২৫ বছরে পদার্পণ করেছে বাংলা ট্রাভেল। এ উপলক্ষে গত ১৫ মার্চ শুক্রবার গুলশান টেরেসে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এ অনুষ্ঠানে বেলালকে অনারারি ডক্টরেট ডিগ্রির সার্টিফিকেট তুলে তেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে এমিরেটস এয়ারলাইনস, কাতার এয়ারওয়েজ, কুয়েত এয়ারওয়েজ, এয়ার ইন্ডিয়া ও সৌদি এয়ারলাইন্সের প্রতিনিধিদের হাতে বাংলা ট্রাভেলস’র পক্ষ থেকে ক্রেস্ট তুলে দেন বেলায়েত হোসেন বেলাল। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনায় ছিলেন আশরাফুল হাসান বুলবুল। উল্লেখ্য, বাংলা ট্রাভেলের কর্ণধার বেলায়েত হোসেন বেলাল ট্রাভেল ব্যবসার পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের একজন আমদানিকারক। তিনি ট্রাভেল ও ইমিগ্রেশন বিষয়ক বিভিন্ন টেলিভিশন টকশো’র নিয়মিত আলোচক। জ্যাকসন হাইটস বাংলাদেশি বিজনেস অ্যাসোসিয়েশনের (জেবিবিএ) অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা তিনি। সর্বশেষ তিনি ছিলেন সংগঠনটির অন্যতম নির্বাচন কমিশনার। নিউইয়র্কে বাংলাদেশিদের প্রাণকেন্দ্র জ্যাকসন হাইটসের ডাইভারসিটি প্লাজায় অবস্থিত বাংলা ট্রাভেলে এয়ার টিকেট ছাড়াও বিশ্বভ্রমণে সহায়তা দেওয়া হয়। বিভিন্ন দেশের ভিসা সহায়তা দেওয়া হয় এখান থেকেই। যুক্তরাষ্ট্রের পাসপোর্ট সেবাও পাওয়া যায় বাংলা ট্রাভেল থেকে। এছাড়া এখানে রয়েছে মানি ট্রান্সফার সুবিধা। রয়েছে ইমিগ্রেশন সহায়তা। এছাড়া বাংলা ট্রাভেলে রয়েছে মোবাইল ফোন ও ইলেকট্রনিক পণ্যের বিশাল সমারোহ। দীর্ঘ প্রবাস জীবনের অধিকারী বেলায়েত হোসেন বেলাল ব্যক্তিগত জীবনে এক ছেলে ও এক মেয়ের জনক। স্ত্রী, ছেলে-মেয়ে নিয়ে বসবাস করেন নিউইয়র্কের লং আইল্যান্ডে। 

post
এনআরবি সাফল্য

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড পেলেন প্রিসিলা

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড পেলেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তারকাখ্যাতি পাওয়া প্রিসিলা। যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম একটি পুরস্কার এটি। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কাছ থেকে তিনি সরাসরি এ পুরস্কার পেয়েছেন। রোববার (১৭ মার্চ) ম্যানহাটনের একটি অডিটোরিয়ামে প্রিসিলাকে এ অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়। তিনি এ উপহারটি তার ফলোয়ারদের উদ্দেশে উৎসর্গ করেছেন। সামাজিক কাজের জন্য এবং নিজের পেজে সমসাময়িক লাইভ করার জন্য বিশেষ পরিচিত প্রিসিলা। পাঁচ বছরের বেশি সময় ধরে তিনি বিভিন্ন সামাজিক কাজ করছেন। কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ এ পর্যন্ত প্রায় ১৯টি অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন তিনি। প্রেসিডেন্টের স্বাক্ষর করা সার্টিফিকেট, একটি চিঠি এবং প্রেসিডেন্টের মনোগ্রামসহ একটি গোল্ডেন মেডেল পেয়েছেন প্রিসিলা। তিনি সাংবাদিকতা ও আইন বিষয়ে নিউইয়র্কের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। এ সময় বিভিন্ন বিতর্কিত ভিডিও তৈরির বিষয়ে প্রিসিলা বলেন, অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ছাড়া তার কোনো উদ্দেশ্য নেই। নিরপেক্ষভাবে আজীবন অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো ছাড়া অন্য কোনো উদ্দেশ্য নেই। কোনো দিনও তিনি বাংলাদেশের কোনো রাজনৈতিক দলের হয়ে কাজ করবেন না বলেও জানান তিনি।

post
এনআরবি সাফল্য

গ্রিসে ৫ প্রবাসী সাংবাদিককে সম্মাননা

প্রবাসে সাংবাদিকতায় অনন্য অবদান রাখায় বাংলা টিভি গ্রিস প্রতিনিধি জাকির হোসাইন চৌধুরী মুন্নাসহ ৫ সাংবাদিককে বিশেষ সম্মাননা দিয়েছে বাংলাদেশ দূতাবাস গ্রিস।দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আসুদ আহমদ প্রবাসী সাংবাদিকদের হাতে এ সম্মাননা ক্রেষ্ট তুলে দেন। গ্রিসে বাংলাদেশ দূতাবাসের আয়োজনে বঙ্গবন্ধুর ১০৪ তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রবাসী সাংবাদিকদের এ সম্মাননা দেয়া হয়। সম্মাননা পাওয়া অন্য সাংবাদিকরা হলেন ডিবিসি নিউজের প্রতিনিধি মতিউর রহমান, আর টিভির প্রতিনিধি প্রদীপ কুমার সরকার, যমুনা টিভির নিরব আহমদ রুমন ও এস এ টিভির কামরুজ্জামান ভূঁইয়া ডালিম। দূতাবাসের দ্বিতীয় সচিব রাবেয়া বেগমের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মিনিষ্টার মোহাম্মদ খালেদ, কাউন্সিলর বিশ্বজিৎ কুমার পাল এবং আওয়ামীলীগ ও বাংলাদেশ কমিউনিটির নেতাকর্মীরা।

About Us

NRBC is an open news and tele video entertainment platform for non-residential Bengali network across the globe with no-business vision just to deliver news to the Bengali community.